Home > জীবনযাপন > চুল পড়া বন্ধ করতে যা খাবেন

চুল পড়া বন্ধ করতে যা খাবেন

আজকাল বেশিরভাগ মানুষই চুল পড়ার সমস্যায় ভুগে থাকেন। চুল আমাদের সৌন্দর্য বৃদ্ধি করে, কিন্তু প্রায়ই বিভিন্ন কারণে মানুষ চুল সংক্রান্ত সমস্যার শিকার হয়। এমন পরিস্থিতিতে চুল পড়ার কারণে মানুষ প্রায়ই হতাশ হয়ে পড়েন। আপনিও যদি চুল পড়ার সমস্যায় ভুগে থাকেন, তাহলে আপনার রান্নাঘরে থাকা খাবারের সাহায্যে চুল পড়া বন্ধ করতে পারেন। আসুন জেনে নিই এমন কিছু খাবার সম্পর্কে-

মিষ্টি আলু , যা সাধারণত উপবাসের জন্য ব্যবহৃত হয়, স্বাস্থ্যের জন্য বরের চেয়ে কম নয়। এটি তামা, আয়রন, জিঙ্ক এবং প্রোটিনের একটি বড় উৎস, যা চুল পড়া কমাতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে, বিশেষ করে অ্যালোপেসিয়া অ্যারেটা এবং টেলোজেন এফ্লুভিয়ামের মতো পরিস্থিতিতে। এতে উপস্থিত ভিটামিন এ অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট হিসেবে কাজ করে, যা ফ্রি র‌্যাডিক্যালের ক্ষতিকর প্রভাব কমায়, যা চুলের অকালে পাকা হতে পারে।

বাদাম হল পুষ্টির একটি পাওয়ার হাউস, যেখানে ম্যাগনেসিয়াম, সেলেনিয়াম, প্রোটিন, অসম্পৃক্ত ফ্যাটি অ্যাসিড সহ বিভিন্ন ভিটামিন রয়েছে। এই পুষ্টিগুলি চুলের ছিদ্রগুলিকে নিয়ন্ত্রণ করে, যার ফলে চুলের বৃদ্ধি বৃদ্ধি পায়। এমন পরিস্থিতিতে চুল মজবুত করতে এবং তাদের স্বাস্থ্য বজায় রাখতে প্রতিদিন 4-5টি ভেজানো বাদাম খেতে পারেন।

ক্যাপসিকাম ভিটামিন সি এর অন্যতম সেরা উৎস। এই ভিটামিন চুল ভেঙ্গে যাওয়া এবং শুষ্কতা প্রতিরোধে সাহায্য করে। এটি আয়রন শোষণে সাহায্য করে, যার ফলে চুল পাতলা হওয়া রোধ করে।

পুষ্টিগুণে ভরপুর ডাল আমাদের স্বাস্থ্যের জন্য খুবই উপকারী। বিভিন্ন জাতের ডাল শুধুমাত্র আমাদের স্বাস্থ্যের জন্যই নয়, আমাদের চুলের জন্যও উপকারী। ফলিক অ্যাসিড, আয়রন, ফসফরাস, জিঙ্ক এবং ম্যাগনেসিয়ামের মতো অনেক পুষ্টি উপাদান এতে পাওয়া যায়, যা চুল পড়া কমায় এবং স্বাস্থ্যকর চুলের বৃদ্ধি বাড়ায়।

গাজর হল ভিটামিন এ, ক্যারোটিনয়েড এবং পটাসিয়ামের একটি পাওয়ার হাউস, যা স্বাস্থ্যকর চুলে উল্লেখযোগ্য অবদান রাখে। ভিটামিন এ-এর অভাব চুলের জন্য ক্ষতিকর এবং শুষ্ক চুলের কারণ হতে পারে।

বিটা-সিটোস্টেরল সমৃদ্ধ বীজ অ্যান্ড্রোজেনেটিক অ্যালোপেসিয়া প্রতিরোধে এবং স্বাস্থ্যকর চুলের বৃদ্ধিতে সাহায্য করে। এছাড়া বীজে প্রচুর পরিমাণে ওমেগা-৩ ফ্যাটি অ্যাসিড পাওয়া যায়, যা চুলের স্বাস্থ্যের উন্নতি ঘটিয়ে অকালে চুল পড়া রোধ করতে সাহায্য করে।

কমলালেবুতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি, যা শুধু চুলের বৃদ্ধিই বাড়ায় না, এতে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, ফ্ল্যাভোনয়েড, বিটা-ক্যারোটিন, ম্যাগনেসিয়াম এবং ফাইবারও রয়েছে। নিয়মিত তাজা কমলার রস পান করলে চুলের স্বাস্থ্য ভালো হয়।

দই হল প্রোবায়োটিকের অন্যতম সেরা উৎস, যা অন্ত্রের স্বাস্থ্যের উন্নতি করতে সাহায্য করে এবং চুলের স্বাস্থ্যের প্রচার করে। এছাড়াও, এটি চুলের ছিদ্রের বিকাশে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে এবং চুল পড়া রোধে সহায়তা করে।

Leave a Reply